Education Ministry

বাংলারশিক্ষা ন্যাশনাল ডেক্স:

মাদরাসা শিক্ষকদের উচ্চতর স্কেল দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) এ সংক্রান্ত আদেশ মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে পাঠানো হয়েছে।

কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের উপসচিব মো. জাহাঙ্গীর হোসেন স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, মাদরাসার জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০১৮ জারির তারিখ অর্থাৎ ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৯ জুলাই থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে কার্যকর হবে।  সে অনুযায়ী মাদরাসার শিক্ষক-কর্মচারীদের অনুকূলে সৃষ্ট বিভিন্ন সুবিধা বা  উচ্চতর স্কেল দেয়ার লক্ষ্যে মাদরাসার জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক বিধি বিধান অনুসরণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হলো।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান,এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী এখন থেকে ১০ বছর পূর্তিতে একটি এবং চাকরির ১৬ বছর পূর্তিতে আরও একটি, মোট দুইটি উচ্চতর গ্রেড পাবেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে যোগ্য শিক্ষকদের আবেদন বিধি মোতাবেক ফরোয়ার্ড করার নির্দেশ দেয়া হবে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধান ও মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের। যোগ্য বিবেচিত সবার আবেদন পাঠাতে হবে।

২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৯ জুলাই জারি করা হয় মাদরাসার নতুন এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো। নতুন নীতিমালায় মাদরাসা শিক্ষক-কর্মচারীদের বিভিন্ন সুবিধা ও উচ্চতর স্কেল দেয়ার সুযোগ রয়েছে। নতুন নীতিমালার আলোকে শিক্ষক-কর্মচারীদের উচ্চতর স্কেল বাস্তবায়নের বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে গত ১১ জুন কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগকে চিঠি পাঠিয়েছিল মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। গত ২২ আগস্ট অধিদপ্তরকে সে চিঠির জবাব পাঠায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ। 

অধিদপ্তরে পাঠানো চিঠিতে মাদরাসা শিক্ষকদের উচ্চতর স্কেল প্রদানের বাজেট বরাদ্দ আছে কিনা এবং থাকলেও তা কত টাকা তা জানতে চায় কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ। তাই, গত  ১৬ সেপ্টেম্বর মাদরাসার শিক্ষক কর্মচারীদের উচ্চতর গ্রেড বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়ে বাজেট বরাদ্দের হিসেব পাঠিয়েছিল মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর।  নতুন এমপিও নীতিমালার আলোকে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরেই মাদরাসা শিক্ষক-কর্মচারীদের উচ্চতর স্কেল দেয়া সম্ভব বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছিল মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। 

madrasa time scale

বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স এসোসিয়েশন সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শিক্ষকদের প্রাপ্য আর্থিক সুবিধা তাদের দেয়ার ব্যবস্থা করায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের অভিনন্দন জানাচ্ছি।

সৌজন্যে: দৈনিকশিক্ষা.কম