প্রধান শিরোনাম »

Category: সাহিত্য

কৃষি উন্নয়ন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজের জন্মদিন আজ

বাংলারশিক্ষা ন্যাশনাল ডেক্সঃ কৃষি উন্নয়ন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজের আজ (৭ সেপ্টেম্বর ২০২০) জন্মদিন। তিনি ১৯৫৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন চাঁদপুরে (সার্টিফিকেট অনুযায়ী তার জন্মতারিখ ২৮ জুন ১৯৫৬)। শাইখ সিরাজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন ভূগোলে। ছাত্র জীবনেই সম্পৃক্ত হন বাংলাদেশ টেলিভিশন, বেতার ও সংবাদপত্রের সঙ্গে। বাংলাদেশ টেলিভিশনের মাটি ও মানুষ অনুষ্ঠান উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে সকল শ্রেনীপেশার মানুষের মধ্যে বিপুল গ্রহণযোগ্যতা লাভ করেন তিনি। পরে তার নিজস্ব পরিচালনাধীন টেলিভিশন চ্যানেল আইতে শুরু করেন কৃষি কার্যক্রম হৃদয়ে মাটি ও মানুষ। উন্নয়ন সাংবাদিকতার জন্য তিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ দুটি রাষ্ট্রীয় সম্মান স্বাধীনতা পুরস্কার (২০১৮) ও একুশে পদক (১৯৯৫)...

Read More

সুখের প্রদীপ নিভে যায়

সুলেখা আক্তার শান্তা: বিধবা হওয়ার পর স্বামীর বাড়ি আর ভাত জোটে না রহিমার। ছোট মেয়ে জেনিয়ারে নিয়ে চলে আসে বাপের বাড়ি। কি আর করা কপালে যদি সুখ না থাকে। বাপের বাড়ি এসেও শান্তি নাই। ভাই ভাবিদের সমস্ত কাজ কাম করেও তাদের মন পাওয়া যায় না। তাদের খাওয়ার পরে যদি খাবার থাকে তাহলে মা-মেয়ের খেতে পারে। আর না হয় উপোস থাকতে হয়। জেনিয়া ক্ষুধার যন্ত্রণায় কান্নাকাটি করে। কান্নার শব্দ পেয়ে ভাই বউ নাদিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে বলে, শুধু খাই খাই করে। রহিমা বলে, ভাবি রাগ করো কেনো? ছোট বাচ্চা, ওকি ভালো-মন্দ বোঝে? রাগ করি কি আর সাধে? এতে কি আমাদের...

Read More

শাসন জননীর

আহমেদ জামিল :   বিন্দু কায় নেই যেন আসমানে, তাঁরার জন্যে ফাঁক, অপরিসীম অন্ধকারে, দূর থেকে ভেসে আসে, খেকশিয়ালের ডাক। ভয় যেন শাসন করে মোরে মধ্যরাতে, একা একা বিল, রক্ত চোখে মোর জননী দিয়েছে হয়তোবা, সব দরজায় খিল? আজ যাবনা ঘরে, ভীষন ভয় করে। জননী কি মোর, বসে আছে, লাঠি হাতে ধরে? যাইহোক, আজ যাই ফিরে ঘরে, যদি নেয় আদরে, খিল খুলে মোরে। বাহিরে ও যে মোর, ভীষণ ভয় করে, সাপ, বিচ্ছু যদি মোরে, দংশন করে মারে। ও জননী মোরে ঘরে নে, ক্ষিধে মরি দুটো ভাত দে। জননী;আজকে তোর ভাত নাই, ঘরে আর তোর হবেনা ঠাই ।। মা তুই...

Read More

সময়ের সাহসী সন্তান

সুরাইয়া পারভীন : গ্রামের স্কুলে স্পোর্টস । খুব জমকালো ভাবে অনুষ্ঠিত হতো । টানা দুই দিন । দূর দূরান্ত থেকে নারী, পুরুষ্ এসে জমা হতে থাকতো । কি সে বিনোদন ছিল স্পোর্টসে ! নিজ গ্রামের তো বটেই , আসে পাশের গ্রামের যারাই শহরে থাকতো । এই সময়টা অবশ্যই ছুটি নিতে হতো তাদের । হউক সে সরকারী কর্মকর্তা , তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী অথবা খেটে খাওয়া দিন মজুর । দু’তিন জন থাকতো দর্শকদের মজা দেয়ার জন্য । বিচিত্রপূর্ণ কাজ করতে থাকতো । খেলাটা একঘেয়েমিতে ছেয়ে যেতো না । লেখাপড়ার উদ্দেশ্যে যারা ঢাকা বা বরিশাল । তারা তো অবশ্য অবশ্যই সদলবলে হাজির...

Read More

অজানা পথ

সুলেখা আক্তার শান্তাঃ ছেলে ছেলে করে সব সময় মন ভারী করে রাখে জাহেদা। জাহেদার তিন মেয়ে- নাহিদা, হালিমা, মানহা। তারপরও তাতে তার সন্তানের আফসোস মেটেনা। তার দরকার পুত্রসন্তান। না হয় এই সম্পত্তি দেখবে কে? মেয়েদের বিয়ে দিলে তারা চলে যাবে স্বামীর বাড়ি। ভিটায় বাতি জ্বালাতে ছেলের দরকার। আলফাত আহমেদ স্ত্রী জাহেদাকে বলে। শোনো জাহেদা। আল্লাহ পাক আমাদের তিন মেয়ে দিয়েছে। তা নিয়েই আমাদের সন্তুষ্ট থাকা উচিত। এরাই আমাদের ছেলে এরাই আমাদের মেয়ে। জাহেদা স্বামীকে উদ্দেশ্য করে বলে, তোমার এই কথায় আমার মন ভরবে না। ছেলে না থাকলে অন্ধকার ঘর আলো করবে কে? তার চেয়ে আমরা কারো কাছ থেকে ছেলে...

Read More