Center-Super

শিবচর, বাংলারশিক্ষা:

এসএসসি পরীক্ষায় ক্যালকুলেটর ব্যবহার করাকে কেন্দ্র করে বুধবার বিক্ষোভ ও দুটি বিদ্যালয়ে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিব মো. রফিকুল ইসলাম ও সহকারী কেন্দ্র সচিব মো. হারুন-অর-রশিদকে পরীক্ষার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এছাড়া তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কেন্দ্র সচিব হিসেবে নতুন দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে পাচ্চার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুল আলম ও সহকারি কেন্দ্র সচিব হিসেবে পাচ্চর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহআলম সিরাজীকে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বিশ্বজিৎ রায়কে প্রধান করে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম ও শিক্ষক প্রতিনিধি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি শামসুল আলম সদস্য করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত কমিটিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এসএসসি পরীক্ষা কমিটির সভাপতি মো. আসাদুজ্জামান কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে বিদ্যালয়ে ভাংচুরের ঘটনায় দুটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে ভাংচুর ও হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করতে পারেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান জানান, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ও ভাংচুরের ঘটনায় এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিব মো. রফিকুল ইসলাম ও সহকারি কেন্দ্র সচিব মো. হারুন-অর-রশিদকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) এসএসসি পরীক্ষায় গণিত বিষয়ে ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে আজ বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের পরীক্ষা শেষে শিবচরের দুই কেন্দ্র শেখ ফজিলাতুন্নেছা বিদ্যালয় ও নন্দকুমার ইনস্টিটিউশনের বিক্ষোভ ও ভাংচুর করেছে পরীক্ষার্থীরা। এ সময় প্রায় অর্ধশত শিক্ষার্থী আহত হয়।