Shibchar-ssc-Exam-2-School-

শিব শংকর রবিদাস, শিবচর, বাংলারশিক্ষা:
দুটি পরীক্ষার বিশৃঙ্খল পরিবেশের অবসান ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার শান্তিপূর্ণ পরিবেশে মাদারীপুরের শিবচরে এসএসসির কৃষি শিক্ষা বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরিবেশকে শান্তিপূর্ণ রাখতে পরীক্ষাটি ঘিরে প্রশাসন, পুলিশ ও নেতৃবৃন্দর বাড়তি তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। এদিন পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো পরিদর্শনে আসেন জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম। অপরদিকে, গনিত বিষয়ে ক্যালকুলেটর ব্যবহারে বাধা দেয়াকে কেন্দ্র করে দুটি স্কুল ভাংচুরের ঘটনায় শিবচর থানায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জানা যায়, বৃহস্পতিবার ছিল এসএসসির কৃষি শিক্ষা বিষয়ের পরীক্ষা। প্রায় ২ হাজার শিক্ষার্থী শিবচরের কেন্দ্রগুলোতে পরীক্ষায় অংশ নেয়। এদিন শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। পরীক্ষায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে কেন্দ্রগুলোর বাইরে সহকারি পুলিশ সুপার আবির হোসেন, পরিদর্শক (তদন্ত) আমির হোসেনের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো পরিদর্শনে আসেন জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামানসহ বিভিন্ন কর্মকর্তারা। এছাড়াও পরীক্ষার শুরু ও শেষের দিকে কেন্দ্রের বাইরে পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আ. লতিফ মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ সেলিম, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি তোফাজ্জেল হোসেন খানসহ দলীয় নেতৃবৃন্দদের অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করতে দেখা যায়।
উল্লেখ্য, এসএসসি পরীক্ষায় সাধারণ সায়েন্টিফিক ক্যালকুলেটর ব্যবহারের নিয়ম থাকলেও মঙ্গলবার গণিত পরীক্ষায় শিবচর নন্দকুমার ইনষ্টিটিউশন ভেন্যুর গেট থেকেই ক্যালকুলেটর নিয়ে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়। অপরদিকে শেখ ফজিলাতুন্নেছা সরকারি পাইলট বালিকা বিদ্যালয় ভেন্যুতে কয়েকটি কক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের ক্যালকুলেটর নিয়ে নেওয়া হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার দুইশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক ভাংচুর চালায় পরীক্ষার্থীরা।
নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্র সচিব সামসুল হক বলেন, কৃষি বিষয় পরীক্ষা সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। পরীক্ষার পরিবেশ ভাল রাখতে পুলিশ, প্রশাসন ও নেতৃবৃন্দ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। অনাকাঙ্খিত ঘটনার জন্য কেন্দ্র সচিব, সহকারী সচিব ছাড়াও ৪ শিক্ষককে অব্যাহতি দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
সহকারি পুলিশ সুপার আবির হোসেন বলেন, দুইস্কুল ভাংচুরের ঘটনায় ২টি মামলা হয়েছে। পরীক্ষার পরিবেশ বজায় রাখতে কেন্দ্রের বাইরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট মাঠে রয়েছে। সামনের পরীক্ষাগুলোতেও কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।
জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, অনাকাঙ্খিত ঘটনার ইন্ধনদাতাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আজ (বৃহস্পতিবার) পরীক্ষা সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়েছে। পরবর্তী পরীক্ষাগুলোও সুন্দরভাবে সম্পন্ন গ্রহনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।