kalkini-road-block

মো. জাফরুল হাসান, কালকিনি, বাংলারশিক্ষা:
জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সমস্ত রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় দুই ভাই-বোনের স্কুলেও যেতে পারছে না ২০ দিন ধরে। ঘটনাটি ঘটেছে মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার পৌর এলাকার পাঙ্গাশিয়া গ্রামে।

ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকা সুত্রে জানা গেছে, কালকিনি পৌর এলাকার পাঙ্গাশিয়া গ্রামের মো. মনির সরদারের ৭৯নং পাঙ্গাশিয়া মৌজার বিআরএস ১৩৭০নং খতিয়ানের ৫ শতাংশ জমিসহ একটি পাকাবাড়ি ক্রয় করেন একই উপজেলার পশ্চিম শিকারমঙ্গল গ্রামের মাহাবুব সরদার। ক্রয়কৃত পাকাবাড়িতে মাহাবুব সরদারের দুই স্কুল পড়ুয়া সন্তানসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ বসবাস করে আসছেন। কিন্তু জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে তাদের বাড়ি থেকে বের হওয়ার সকল যাতায়াতের রাস্তা প্রায় ২০ দিন ধরে দেয়াল তৈরী করে বন্ধ করে দিয়েছেন জমি বিক্রেতা মনির সরদারের বড় ভাই বাদল সরদার ও ছোট ভাই লিটন সরদার। তারা এ বাড়ির সকল পথ বন্ধ করে দেয়ায় ঘর থেকে বের হতে পারছেন না মাহাবুব সরদারের মা, স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তান। ফলে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র জনি এবং প্রথম শ্রেণির ছাত্রী জেরিনের স্কুলে যাওয়া বন্ধ প্রায় ২০ দিন।

এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে করে মহিলাসহ কমপক্ষে ৭ জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালসহ স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ভুক্তভোগী সালমা খানম বলেন, আমরা টাকা দিয়ে জমিসহ বাড়ি ক্রয় করেছি মনির সরদারের কাছ থেকে। কিন্তু বিনাকারণে আমাদের বাড়ি থেকে বের হওয়ার সকল পথ আটকে দিয়েছে মনির সরদারের ভাই বাদল সরদার। তাই আমরা প্রায় ২০ দিন ধরে ঘর থেকে বের হতে পারছি না। এমনকি আমার সন্তানরা স্কুলেও যেতে পারছে না। আমি এর দ্রুত সমাধান ও বিচার চাই।

এ ব্যাপারে বাদল সরদার বলেন, আমার ভাইয়ের বিক্রিত জমির মধ্যে আমাদের জমি রয়েছে। তাই আমি দেয়াল নির্মাণ করেছি। জমি ভাগ-বন্টন না হওয়া পর্যন্ত কোন সমাধান সম্ভব নয়।

কালকিনি থানার ওসি (তদন্ত) মো. হারুন অর রশিদ বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি এবং আহত পারভেজকে উদ্ধার করে বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালে পাঠিয়েছি।