বাংলারশিক্ষা ন্যাশনাল ডেক্স:

আসছে ঈদুল ফিতরের আগেই দুটি ঈদ উৎসব ভাতা, বৈশাখী ভাতা ও এপ্রিল মাস পর্যন্ত বেতন পাচ্ছেন নতুন এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকরা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গত বছরের ১ জুলাই থেকে এরিয়ারসহ পাচ্ছেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। গত বছরের আগস্টে ঈদুল আযহা ছিলো। সেই উৎসব বোনাসটি বকেয়া পাবেন। আর গত মাসের বৈশাখী ভাতা পেয়েছেন পুরনো এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। নতুন শিক্ষকরা সেটা বকেয়া হিসেবে পাবেন। এর সাথে যুক্ত হচ্ছে আগামী ২৫ মে’র সম্ভাব্য ঈদুল ফিতরের ভাতা। এসব সুবিধা নতুন এমপিওভুক্ত শিক্ষক ন্যায্য পাওনা। ঈদের আগেই তাদের জন্য চেক ছাড় করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গতকাল শুক্রবার মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরে এমপিওর সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে এমপিওর সভা বসছে।

সূত্র জানায়,  আজকের সভায় এপ্রিল মাস পর্যন্ত বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হতে যাচ্ছে নতুন এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের। আর আগামী ২৮ মে অনুষ্ঠিতব্য মে মাসের নিয়মিত এমপিওভুক্তির সভার পর পুরনো এমপিওভু্ক্ত শিক্ষকদের মে মাসের বেতনের সাথে নতুন এমপিওভুক্ত শিক্ষকরাও মে মাসের বেতন পাবেন।

নতুন এমপিওভুক্ত মাদরাসার ১ হাজার ৩৪৭ জন শিক্ষক কর্মচারীদের এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব শিক্ষকসহ পুরাতন এমপিওভুক্ত মাদরাসাগুলোতে বিধি মোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক কর্মচারী এবং পেন্ডিং থাকা আবেদনের ভিত্তিতে মোট ১ হাজার ৫৩৪ জন শিক্ষক কর্মচারীকে এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। আর ৪০ জন শিক্ষককে বিএড স্কেল দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ মে) ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাদরাসার এমপিওর কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সভায় এমপিওভুক্তির জন্য চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত মাদরাসাগুলোর এবং ইতোমধ্যেই এমপিওভুক্ত মাদরাসাগুলোতে বিধিমোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিও আবেদন নিষ্পত্তি করা হয়। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতিতে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় নতুন এমপিওভুক্ত মাদরাসার ১  হাজার ৩৪৭ শিক্ষককে এমপিওভুক্ত ও ইনডেক্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব শিক্ষকসহ পুরাতন এমপিওভুক্ত মাদরাসাগুলোতে বিধিমোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক কর্মচারী এবং পেন্ডিং থাকা আবেদনের ভিত্তিতে মোট ১ হাজার ৫৩৪ জন শিক্ষক-কর্মচারীকে এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আর ৪০ জন শিক্ষককে বিএড স্কেল দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এমপিওভুক্তির জন্য চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ৪৯৯ মাদরাসার মধ্যে ৩২৪টি দাখিল মাদরাসা, ১১৯টি আলিম মাদরাসা, ৩৪টি ফাযিল মাদরাসা ও ২২টি কামিল মাদরাসা আছে। আর তালিকা থেকে ৩৪টি দাখিল মাদরাসা, ৯টি আলিম মাদরাসা, ৮টি ফাযিল মাদরাসা এবং ৭টি কামিল মাদরাসা চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়েছে।

চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের ১ জুলাই থেকে বেতন ভাতা পাবেন। আর কোন প্রতিষ্ঠান যোগ্যতা ধরে রাখতে ব্যর্থ হলে তার এমপিও স্থগিত করা হবে।

সৌজন্যে: দৈনিক শিক্ষাডটকম