বাংলারশিক্ষা:
শেষ মুহুর্তে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌপথে যাত্রী এবং গাড়ির চাপ বেড়েছে। আগামীকাল ঈদ উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষ শিমুলিয়া ঘাটে এসে নদী পারের অপেক্ষায় জড়ো হচ্ছেন। এ কারণে ঘাটে ব্যক্তিগত গাড়ি ও লোকজনের চাপ গতকালের চেয়ে অনেকটা বেড়েছে।

গণপরিবহণ ছাড়া সকল যানবাহন নির্বিঘ্নে চলাচল করায় শেষ দিনে লোকজন বাড়ি যাচ্ছেন। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হওয়ায় লোকজন স্বস্তিতেই পার হচ্ছে এই নৌপথ। তবে স্রোত তীব্র হওয়ায় কিছুটা বিঘ্নিত হচ্ছে লঞ্চসহ অন্যান্য নৌযান চলাচল। ব্যক্তিগত গাড়ি, ভাড়ায় চালিত ছোট গাড়ি, মোটরসাইকেল, সিএনজি রিক্সা, ভ্যান, ইঞ্জিন ালিত ভ্যান এমন কি পায়ে হেঁটেও অনেকে ঘাটে আসছেন। ঘাটে আসা গাড়ি ও সাধারণ যাত্রীরা নির্বিঘ্নে ফেরিতে পার হচ্ছেন। সামাজিক দূরত্ব না মানায় করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। তবে ট্রাক চালকদের অনেকেই আশঙ্কা করছেন, এবারের ঈদে দুই ঘাটে অনেক চালকদের থাকতে হবে।

বিআইডব্লিউটিসির কাঠালাবাড়ী ঘাটের এক সহকারী ব্যবস্থাপক জানিয়েছেন, এই নৌ-বহরের ১৭টি ফেরির মধ্যে ১২ চলাচল করছে। এতে জরুরী পণ্যবাহী ট্রাক, ছোট গাড়ি অ্যাম্বোলেন্স ও সাধারণ যাত্রীরা পার হচ্ছেন।